বাগেরহাটে ৩ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল, ২৬ জন বৈধ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাগেরহাটের ৪টি আসনে ৩ জনের মনোনয়ন পত্র বাতিল করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। এতে ৪টি আসনে বৈধ্য প্রার্থীর সংখ্যা দাড়িয়েছে ২৬ জন।ঋণখেলাপি, মনোনয়ন পত্র পূরণে ত্রুটি ও সম্পদের হিসেব বিবরণিতে স্বাক্ষর না থাকার কারণে রবিবার (২ ডিসেম্বর) জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাসের কার্যালয়ে বাছাই কালে তাদের মনোনয়ন পত্র বাতিল করেণ। এসময় প্রার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে মনোনয়ন পত্র দাখিলের শেষ দিন বুধবার (২৮ নভেম্বর) বিকেল ৫টা পর্যন্ত বাগেরহাটের ৪টি আসনে ২৯ প্রার্থী তাদের মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছিলেন।
মনোনয়ন পত্র বাতিলকারীরা হলেন, খুলনা সিটি ব্যাংকে ঋণ খেলাপির কারণে বাগেরহাট-১ (চিতলমারী, মোল্লাহাট, ফকিরহাট) আসনে জাতীয় পার্টির এসএম আল জোবায়ের। প্রার্থী নিজে প্রস্তাবক হওয়ায় বাগেরহাট-২ (বাগেরহাট সদর ও কচুয়া) আসনে জাতীয় পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান।সম্পদের বিবরণি দাখিল না করা ও স্বাক্ষর না থাকায় বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ-শরণখোলা) আসনে ন্যাশনালস পিপলস পার্টি (এনপিপি)-র মোঃ আমিনুল ইসলাম খান।
মনোনয়ন পত্র বৈধ হওয়া প্রার্থীরা হলেন, বাগেরহাট-১ (চিতলমারী, মোল্লাহাট, ফকিরহাট) আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী বঙ্গবন্ধুর ভ্যাতুষ্পুত্র শেখ হেলাল উদ্দিন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার শেখ মাসুদ রানা, বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য এসএম মুজবিুর রহমান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মোঃ লিয়াকত আলী শেখ, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের এমডি শামসুল হক।
বাগেরহাট-২ (বাগেরহাট সদর ও কচুয়া) আসনে বঙ্গবন্ধুর ভ্যাতুষ্পুত্র শেখহেলাল উদ্দিনের ছেলে শেখ তন্ময়, জেলা বিএনপির সভাপতি এম এ সালাম, বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসেন তালিম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর অধ্যক্ষ মোঃ আব্দুল আউয়াল, বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি)- খান সেকেন্দার আলী, জাকের পার্টির খান আরিফুর রহমান, ¯^তন্ত্র প্রার্থী এস.এম আজমল হোসেন, রেজাউর রহমান মন্টু।
বাগেরহাট-৩(মোংলা-রামপাল) আসনে, আওয়ামী লীগের খুলনা সিটি কর্পোরেশনেরমেয়র তালুকদার আব্দুল খালেকের স্ত্রী হাবিবুন নাহার, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি ড. ফরিদুলইসলাম, জেলা জামায়াতের নায়েবে আমির এ্যাড. আব্দুল ওয়াদুদও বিএনপির প্রার্থী হিসেবে, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাও. শাহজালাল সিরাজী, জাকের পার্টির মোঃ রেজাউল শেখ, জাতীয় পার্টির মোঃ সেকেন্দার আলী মনি।
বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ-শরণখোলা) আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. মোজাম্মেল হোসেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি কাজী খায়রুজ্জামান শিপন এবং জেলা জামায়াতনেতা অধ্যক্ষ আব্দুল আলিমও বিএনপির প্রার্থী হিসেবে, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের অধ্যক্ষ আব্দুল মজিদ, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনফ)-র মোঃ রিয়াদুল ইসলাম আফজাল, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির মোঃ শরিফুজ্জামান তালুকদার, জাতীয় পার্টির সোমনাথ দে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেন।
জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাস বলেন, ২৯ জন প্রার্থীর মধ্যে ঋণখেলাপি, মনোনয়ন পত্র পূরণে ত্রুটি ও সম্পদের হিসেব বিবরণিতে স্বাক্ষর না থাকার কারণে আমরা ৩ জনের মনোনয়ন পত্র বাতিল করেছি। ৯ ডিসেম্বর প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। ১০ ডিসেম্বর প্রতিক বরাদ্দ করা হবে বলে ও জানান তিনি।
তিনি আরও বলেন, কোন আসনের বিপরীতে একটি দল থেকে দুই জন প্রার্থী তাদের মনোনয়ন দাখিল করেছেন। ৯ ডিসেম্বরের মধ্যে যদি কেউ তার মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার না করে তাহলে দুই জনেরই প্রার্থীতা বাতিল হবে।