৩৩ মামলায় ৩ বছর জেলে আছেন ‘ভুল’ আসামি

৩৩ মামলায় ৩ বছর জেলে আছেন ‘ভুল’ আসামি। এ অভিযোগের বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে দুর্নীতি দমন কমিশন চেয়ারম্যানের মনোনীত প্রতিনিধি, মামলার বাদীসহ চারজনকে তলব করেছেন হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে গনমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন উপস্থাপনের পর স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে বিচারপতি নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার (২৮ জানুয়ারি) রুলসহ এ আদেশ দেন।

৩ ফেব্রুয়ারি দুদক চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি, মামলার বাদী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবের একজন প্রতিনিধি ও আইন সচিবের একজন প্রতিনিধিকে উপস্থিত থেকে এ ঘটনার ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ বি এম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ (বাশার)।

সোমবার একটি জাতীয় দৈনিকে “৩৩ মামলায় ‘ভুল’ আসামি জেলে/ স্যার, আমি জাহালম, সালেক না…” শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ওই প্রতিবেদন আদালতের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অমিত দাসগুপ্ত।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, এ প্রতিবেদন পত্রিকায় দেখে আদালতে উপস্থাপনের পর স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে রুলসহ আদেশে দিয়েছেন। আদেশে ৩ ফেব্রুয়ারি দুদকের ডিজি (আইন), মামলার বাদী, স্বরাষ্ট্র সচিবের একজন প্রতিনিধি ও আইন সচিবের একজন প্রতিনিধিকে হাজির হয়ে এ ঘটনার ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

এছাড়া রুলও জারি করেছেন। রুলে কারাগারে থাকা ‘ভুল’ আসামি জাহালমকে কেন অব্যাহতি দেওয়া হবে না এবং তাকে মুক্তির কেন ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তা জানতে চেয়েছেন।

বিবাদীরা হচ্ছেন, স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিব, দুর্নীতি দমন কমিশনের পক্ষে চেয়ারম্যান, দুদকের ডিজি (আইন), মামলার বাদী দুদক পরিচালক আব্দুল্লাহ আল জাহিদ, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান, আইজি-প্রিজন ও সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

পত্রিকায় প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, “স্যার, আমি জাহালম। আমি আবু সালেক না…আমি নির্দোষ।” আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়ানো লোকটির বয়স ৩০-৩২ বছরের বেশি না। পরনে লুঙ্গি আর শার্ট। ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬-এ বিচারকের উদ্দেশে তাকে বারবার বলতে দেখা যায়, “আমি আবু সালেক না।”

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আবু সালেকের বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির ৩৩টি মামলা হয়েছে। কিন্তু আবু সালেকের বদলে জেল খাটছেন, আদালতে হাজিরা দিয়ে চলেছেন এই জাহালম। তিনি পেশায় পাটকলশ্রমিক।

জাহালমের কারাবাসের তিন বছর পূর্ণ হবে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি। দুদক এখন বলছে, জাহালম নিরপরাধ প্রমাণিত হয়েছেন। তদন্ত করে একই মত দিয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনও। ফলে একটি মামলায় তার জামিন হয়েছে। আরো ৩২টি মামলায় জামিন পাওয়ার অপেক্ষায় আছেন তিনি।