বাগেরহাটে নিখোঁজের দুইদিন পর চিত্রা নদী থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

বাগেরহাটের চিতলমারীর চিত্রা নদীতে পড়ে নিখোঁজের দুই দিন পর আইরীনা বেগম (৪৫) নামে এক গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল। রবিবার দুপুরে খুলনা ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল তল্লাসি চালিয়ে চিত্রা নদীতে ভাসমান অবস্থায় ওই গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে।
আইরীনা বেগম জেলার চিতলমারী উপজেলার চিত্র নদী সংলগ্ন খিলিগাঁতি গ্রামের কামাল হোসেনের স্ত্রী। কামাল হোসেন পেশায় কৃষক।
বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিস কার্যালয়ের উপ সহকারি পরিচালক (ডিএডি) সরদার মাসুদ বলেন, গত ১ ফেব্রুয়ারি রাত এগারোটার দিকে বাড়ির পাশের চিত্রা নদীতে থালা বাসন ধুতে যান। এরপর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। শনিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে পুলিশের ট্রিপল নাইন থেকে বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিসে ওই গৃহবধূ নিখোঁজের সংবাদ আসে। রবিবার সকাল আটটার দিকে আমরা খুলনা ফায়ার সার্ভিসের সাত সদস্যের একটি ডুবুরি দল নিয়ে সেখানে গিয়ে তল্লাসি শুরু করি। তল্লাসির শুরুর প্রায় পৌনে পাঁচ ঘন্টা পর চিত্রা নদীতে ভাসমান অবস্থায় আইরীনা বেগমের মরদেহ উদ্ধার করি।
চিতলমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অনুকুল চন্দ্র সরকার বলেন, চিত্রা নদীতে পড়ে নিখোঁজ হওয়া আইরীনা বেগমের স্বামীর পরিবারের পক্ষ থেকে শনিবার পুলিশকে জানানো হয়েছিল। আইরীনা শুক্রবার রাত এগারোটার দিকে পরিবারের সবার খাওয়া দাওয়া শেষে একা বাড়ির সামনের চিত্রা নদীতে থালা বাসন ধুতে যান। প্রায় আধা ঘন্টা পার হলেও আইরীন ঘরে ফিরে না আসায় সবাই তাকে নদীর ঘাটে খুঁজতে গিয়ে তার আর সন্ধান পাননি। তিনি ধারনা করছেন সেখানে পা পিছলে পড়ে নদীতে ভেসে যায়।