ঠিকাদারকে পরিচয় করিয়ে দিয়ে, কাজ বুঝে নিতে তন্ময়ের আহবান

মোঃ শহিদুল ইসলাম, বাগেরহাট

বাগেরহাটে ঠিকাদারকে ডেকে জনগনের সাথে পরিচয় করিয়ে সঠিকভাবে কাজ বুঝে নিতে বললেন বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়। তিনি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান রানা বিল্ডার্স প্রাইভেট লিঃ এর প্রকল্প পরিচালককে দরপত্র অনুযায়ী কাজ করার নির্দেশনা দেন।

শনিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কচুয়া উপজেলা চত্তরে জেলার সাইনবোর্ড বাজার-কচুয়া সড়ক প্রশস্তকরণ ও কচুয়া সেতু নির্মান কাজের উদ্বোধন পরবর্তী মতবিনিময় সভা প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, উন্নয়ন কাজ এমন হবে যাতে ভবিষ্যতে দলমত নির্বিশেষে সকল মানুষ এই সরকারের প্রতি আস্তা রাখে। শুধু বাগেরহাট ও কচুয়া নয় পর্যায়ক্রমে জেলার সকল সড়ক ও অবকাঠামো উন্নয়নের ব্যাপারে সকল সংসদ সদস্য এক হয়ে কাজ করব। উপস্থিত সকলকে ভাল কাজে সহায়তা করে দলমত নির্বিশেষে দেশের উন্নয়ন করে গনমানুষের ভাগ্য পরিবর্তণে ভূমিকা রাখার আহবান জানান।

নির্বাহী প্রকৌশলী আনিসুজ্জামান মাসুদের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাড.মীর শওকাত আলী বাদশা, জেলা প্রশাসক তমন কুমার বিশ্বাস,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো.শাহাদাত হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা ফরিদা আক্তার বানু লুচি,উপজেলা চেয়ারম্যান এস.এম. মাহফুজুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাসমিন ফারহানা,উপজেলা আ.লীগের সভাপতি হাজরা দেলোয়ার হোসেন, অধ্যক্ষ মো.সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

এর আগে তিনি “জেলা মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ(খুলনা জোন)” শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় বাগেরহাট(সাইনবোর্ড)-কচুয়া (জেড-৭৭০৩) জেলা মহাসড়ক ও কচুয়া সেতু নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ১৯ কোটি ৩১ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সাড়ে সাত কিলোমিটার সড়ক এবং ৯ কোটি ৪৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে কচুয়া সেতুর নির্মান  ব্যয় ধরা হয়েছে। এছাড়াও এ প্রকল্পের আওতায় ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে সাইনবোর্ড গোল চত্ত্বর ও এক কোটি ৭ লক্ষ টাকা ব্যয়ে একটি কালভার্ট নির্মান হবে। ২০২০ সালের জুন মাসের মধ্যে কাজ শেষ হবে বলে জানিয়েছে সড়ক বিভাগ।