বাগেরহাটে আকস্মিক ঝড় ও বৃষ্টিতে ঝড়ে পড়লো আমের মুকুল

হঠাৎ ঝড় ও বৃষ্টিতে বাগেরহাটের বেশিরভাগ আম গাছের মুকুল ঝড়ে পড়েছে। এতে অধিকাংশ গাছে আশানুরুপ আম না হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।এছাড়া শীতের শেষে হঠাৎ বৃষ্টিতে বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষ।

সোমবার ভোররাতে বিকট শব্দে মেঘের গর্জণ দিয়ে শুরু হয় বৃষ্টি। এতেই ঘটে বিপত্তি।জেলার সব এলাকার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।ধান ছাড়া অন্য ফসল ও ফলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। দিনমজুররা কাজ করতে না পেরে ফিরে এসেছে বাড়িতে।

শহরের সোনাতলা এলাকার বাসিন্দা স্কেন্দার আলী জানান, বিকট শব্দে ঘুম ভেঙ্গে যায়। পরে কিছুক্ষন পড়ে দেখি চারদিকে অন্ধকার। বিদ্যুতের ঝলকানি ও ঝড়ো হাওয়া বইছে।সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি বাগানের গাছের আমের মুকুল, ছবেদা সব কিছু নিচে পড়ে আছে।শীতের শেষে হঠাৎ এ বৃষ্টিতে আমাদের ক্ষতি হয়ে গেল।

মোল্লা মাসুদুল হক বলেন, বজ্রপাত ও বৃষ্টিতে গাছের লেবুগুলো ঝড়ে পড়েছে। লাউগাছের লতা পড়ে গেছে। আমের মুকুল ঝড়ে পড়ায় খুব ক্ষতি হয়েছে।এ মৌসুমে নিজের গাছের আম খেতে পারব কিনা সন্দেহ আছে।

হতদরিদ্র মহিদুল ইসলাম জানান সকালে ঘুম থেকে উঠে কাজের জন্য গেছিলাম। কিন্তু বৃষ্টির জন্য মালিক আজকে কাজ করতে নিষেধ করলেন। তাই বাসায় চলে আসছি।

শহরের ব্যস্ততম মোড় মিঠাপুকুর পাড়ে রিকশার ফুট ফেলে ভিতরে বসে থাকা চালক জহির উদ্দিন বলেন, সকালে রিকশা নিয়ে বের হয়ে বসে আছি। কোন যাত্রী পাচ্ছিনা। আকস্মিক বৃষ্টিতে লোকজন জরুরী কাজ ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হচ্ছে না।

কৃষি অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আফতাব উদ্দিন বলেন, সামান্য কিছু ক্ষতি হলেও বৃষ্টিতে কৃষির উপকার বেশি হয়েছে। সামনের দিনগুলোতে ঝড় না হয়ে যদি বৃষ্টি হয় তা হলে ধানের ফলন ভাল হবে।