পানগুছি নদীতে সেতু নির্মানের লক্ষে কুয়েত প্রতিনিধি দলের পরিদর্শণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জের পানগুছি নদীতে সেতু নির্মানের প্রস্তাবিত স্থান পরিদর্শন করেছেন কুয়েতের রাষ্ট্রীয় সংস্থা কুয়েত ফান্ড ফর আরব ইকোনোমিক ডেভেলপমেন্ট (কেইএইডি) এর ৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল। শুক্রবার দুপুরে মোরেলগঞ্জ ছোলমবাড়িয়া বাসস্টান্ড সংলগ্ন নদীতে সেতু নির্মানের জন্য অর্থায়নকারী সংস্থার প্রতিনিধি দল, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ ও সড়ক জনপথ বিভাগের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা ষরেজমিন পরিদর্শন করেন।


এসময় বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ-শরণখোলা) আসনের সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন, কুয়েত ফান্ড ফর আরব ইকোনোমিক ডেভেলপমেন্ট (কেইএইডি) এর সিনিয়র ইকোনোমিস্ট মাহমুদ আলী আল এরিয়ানী, সিনিয়র ইঞ্জিনিয়ারিং এ্যাডভাইজার মুহাম্মদ আল হাদ্দীদী, সিনিয়র লিগাল এ্যাডভাইজার হাসান মুদাল্লাল, সহকারী লিগাল এ্যাডভাইজার তাহের আল খাতীব, অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সহকারি প্রধান এসএম হাসান, সড়ক জনপথ বিভাগ, খুলনা সার্কেলের সুপারিন্টেন্ড ইঞ্জিনিয়ার একেএম আজাদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান মিন্টু, বাগেরহাটের নির্বাহী প্রকৌশলী আনিসুজ্জামান মাসুদ, নির্বাহী প্রকৌশলী সেলিম মোস্তফা, সহকারী প্রকৌশলী পিয়াস সেন, মোরেলগঞ্জ পৌরসভা মেয়র এসএম মনিরুল হক তালুকদার, ভাইস চেয়ারম্যান ফাহিমা ছাবুল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আজমীন নাহার, চেয়ারম্যান মাহমুদ আলী উপস্থিত ছিলেন।


পরিদর্শন শেষে এসএম হাসান বলেন, কুয়েতের রাষ্ট্রীয় সংস্থা কুয়েত ফান্ড ফর আরব ইকোনোমিক ডেভেলপমেন্ট (কেইএইডি) এর ৪ সদস্যের দল সেতু নির্মানের স্থান পরিদর্শন করলেন। এখন সরকারের সাথে তাদের সেতু নির্মান সংক্রান্ত বিভিন্ন আলোচনা হবে। তারপর সরকারের সাথে চুক্তি সম্পন্ন হবে। চুক্তির পরে যতদ্রুত সম্ভব কাজ শুরু হবে।
সড়ক জনপথ বিভাগ, বাগেরহাটের নির্বাহী প্রকৌশলী আনিসুজ্জামান মাসুদ বলেন, ইতোমধ্যে সাইনবোর্ড-মোরেলগঞ্জ-রায়েন্দা-শরণখোলা-বগী আঞ্চলিক মহাসড়কের ১৭তম কিলোমিটারে পানগুছি নদীর উপর ১৪শ’ মিটার দীর্ঘ সেতু নির্মান প্রকল্পটির সম্ভাব্যতা যাচাই সম্পন্ন হয়েছে। সেতু নির্মানে দাতা সংস্থা হিসেবে কুয়েত ফান্ড ফর আরব ইকোনোমিক ডেভেলপমেন্ট (কেইএইডি) বিনিয়োগ করতে সম্মত হয়েছেন। প্রাথমিক অবস্থায় ৩‘শ ৭০ কোটি টাকা সেতুটির নির্মান ব্যয় ধরা হয়েছে।
বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ-শরণখোলা) আসনের সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন বলেন, আমার দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক জীবনের একটা অন্যতম প্রত্যাশা পানগুছি নদীতে একটি সেতু নির্মান। এবার আশা করি এ সেতুটি বাস্তবে রুপ নেবে। আমার এলাকার জনগণ কুয়েত সরকারের প্রতনিধি দলের পরিদর্শনে খুব খুশি। সরকারের পক্ষ থেকে এবং বাগেরহাটবাসীর পক্ষ থেকে আমি কুয়েত সরকারকে ধন্যবাদ জানাই।