ঘূর্ণিঝড় বুলবুল-র কারণে সুন্দরবনের রাস উৎসব বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক: বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় বুলবুল-র কারণে সুন্দরবনের দুবলার চরে ঐতিহ্যবাহী রাস উৎসব স্থগিত করেছে রাস মেলা উদযাপন কমিটি।
শুক্রবার সকাল থেকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি এবং বৈরি আবহাওয়ার কারণে দুবলার চর রাস উৎসব জাতীয় কমিটির পক্ষ থেকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
দুবলার চর রাস উৎসব জাতীয় কমিটির সহসভাপতি বাবুল সরদার ও সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ বসু সন্তু বলেন, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় বুলবুল-র কারণে সকাল থেকে বৃষ্টি ও বাতাস হচ্ছে। যার কারণে অনুমতি না মেলায় সুন্দরবনের দুবলার চরের আলোরকোলে এবারের রাস উৎসবের মেলা স্থগিত করা হয়েছে। পূজা আর্চোনাসহ অন্যান্য ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি যথারীতি অনুষ্ঠিত হবে।
সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মোঃ মাহমুদুল হাসান বলেন, বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় বুলবুল-র কারণে সৃষ্ট বৈরী আবহাওয়ার কারণে এবারের রাস মেলা স্থগিত করেছে আয়োজক কমিটি। বৈরী আবহাওয়া থাকায় বন বিভাগের পক্ষ থেকেও আমরা এবার কোন ধরণের পাশ পার্মিট প্রদান করব না।
জানাযায়, আগামী ১০ নভেম্বর, রবিবার থেকে সুন্দরবনের আলোরকোলে তিন দিন ব্যাপি রাস উৎসব অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।
হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষেরা মনে করে, তাদের দেবতা শ্রীকৃষ্ণ এখানে এসে পুণ্যস্নান করেছিলেন। তাই বহু বছর ধরে তারাও তা করে আসছে। ধর্মীয় ভক্তি শ্রদ্ধায় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন গত প্রায় দুই যুগ ধরে জাঁকজমকভাবে পালন করে আসছেন দুবলার চরের এই রাস উৎসব। উৎসবটি মূলত হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের হলেও এটি এখন সব ধর্মের মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে।
বঙ্গোপসাগর উপকূলে সুন্দরবনের দ্বীপ দুবলরা চর আলোরকোলে আড়াই শত বছরের বেশি সময় ধরে নভেম্বর মাসের রাস পূর্ণিমায় সনাতন হিন্দুরা এই রাস উৎসব পালন করে আসছে। প্রথম দিকে এই উৎসবের কোনও নিয়ন্ত্রন বা আইনি নিয়মনীতি মানা হতো না। ৭৫ সালের পর বন বিভাগের তত্ত্বাবধানে এবং সুন্দরবনে মৎস্যজীবীদের সংগঠন দুবলা ফিশারমেন গ্রুপের সভাপতি এবং মুক্তিযুদ্ধের ৯ নম্বর সেক্টরের সাবসেক্টর কমান্ডার অবসরপ্রাপ্ত মেজর (অব.) জিয়াউদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে রাস মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। তবে, জিয়াউদ্দিনের মৃত্যুর পর গত তিন বছর ধরে বন বিভাগের মাধ্যমেই এই উৎসব পালিত হচ্ছে। প্রতিবছর এখানে দেশি-বিদেশি লক্ষাধিক লোকের মিলনমেলায় পরিণত হয় সুন্দরবনের তিন দিনের রাস উৎসব।