সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, ডাকাত আপনারা আওয়ামী লীগে প্রশ্রয় দিবেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক
বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন বলেছেন, একটা মাত্র অনুরোধ দয়া করে কোন সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, ডাকাত আপনারা আওয়ামী লীগে প্রশ্রয় দিবেন না। আপনারা যদি সুসংগঠিত হন, বহিরাগতদের কোন প্রয়োজন হবে না। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সংগঠিত থাকলে বিএনপি কোনদিন ক্ষমতায় আসতে পারবে না।

সোমবার দুপুরে শহরের খানজাহান আলী ডিগ্রি কলেজ মাঠে বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, আপনারা সুসংগঠিত হন, আরও সুসংগঠিত হন। এদেশে বিএনপি জামাতের কোন অস্তিত্ব থাকবে না। তৃনমূলের নেতাকর্মীরাই আমাদের শক্তি। ১/১১ এর সময় নেত্রী যখন জেলে ছিল আমাদের দলের অনেকেই সংস্কারের কথা বলেছিল। কিন্তু সেদিন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ঠিকছিল বলেই শেখ হাসিনা আবার ফিরে এসেছেন। আপনারা ঠিক থাকলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে আর কোন দিন ক্ষমতা থেকে নামাতে পারবে না।

সাম্প্রতিক সময়ে যুবলীগের কয়েক নেতার বিতর্কিত কর্মকান্ডের প্রসঙ্গ টেনে তিনি আরও বলেন, আমার একটা মাত্র অনুরোধ সবার কাছে দয়া করে কোন সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, ডাকাতকে আপনারা আওয়ামী লীগে প্রশয় দিবেন না। আপনারা ভাড়া করা লোক দলে নিবেন না। এরা দলের মধ্যে আসবে, অসান্তি বাঁধাবে। এদের সুযোগ দিয়েন না। আপনরা এক থাকেন, দলকে শক্তিশালী করেন। আরও শক্তিশালী করেন। বাংলাদেশের সাধারণ জনগণ আপনাদের সাথে আছে।

বিএনপির আন্দোলনের বিষয়ে তিনি বলেন,  দল সুসংগঠিত থাকলে দেশে বিএনপির নাম আর থাকবে না। বিএনপি হুমকী দেয়, রাজপথে নেমে যদি কোন অরাজকতা করা হয়। আমরা আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা রাজপথে ওদের মোকাবেলা করব। কোন ছাড় দেওয়া হবে না।

এরআগে সোমবার (৯ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১২টায় বাগেরহাট শহরের খানজাহান আলী ডিগ্রি কলেজ মাঠে পতাকা উত্তোলন ও পায়রা উড়িয়ে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য পিযুষ কান্তি ভট্টাচার্য।

সম্মেলন উপলক্ষে সকাল থেকেই জেলার ৯ উপজেলা, ৭৫টি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড থেকে দলীয় নেতা-কর্মীরা ব্যানার-ফেস্টুনসহ মিছিল নিয়ে সম্মেলনস্থলে আসতে থাকেন। সকাল সাড়ে ১০টার মধ্যেরই নেতা-কর্মীদের উপস্থিতিতে পুরো এলাকা লোকে-লোকারণ্য হয়ে যায়।

অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ সপন এমপি, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য মির্জা আজম, এসএম কামাল হোসেন, আমিরুল আলম মিলন, বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদ শেখ কামরুজ্জামান টুকু প্রমুখ।

বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. মোঃ মোজাম্মেল হোসেনের সভাপতিত্বে সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মী সম্মেলনে অংশগ্রহন করেছেন।

সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে বর্তমান কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটির জন্য সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে নাম প্রস্তাব করতে বলা হয়। এসময় ওই দুই পদে একটি করে নাম প্রস্তাবিত হওয়ায় ডা. মোজামে¥ল হোসেন ও শেখ কামরুজ্জামান টুকু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে পুনরায় নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। এছাড়া বাগেরহাট-১ আসনের সাংসদ শেখ হেলার উদ্দিন ও তার ছেলে বাগেরহাট-২ আসনের সাংসদ শেখ তন্ময়কে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ঘোষণা করা হয়।