যুবলীগ নেতা ইউপি সদস্যের উপর হামলাকারীদের বিচারের দাবিতে এলাকাবাসির মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি.
বাবার ওপর সন্ত্রাসী হামলার বিচার দাবি জানাতে মানববন্ধনে অংশ নেয় দুই শিশু কন্যা। তারা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হামলাকারীদের উপযুক্ত বিচার দাবি করেন। এসময় সহা¯্রাধিক নারী পুরুষসহ নানা বয়সী এলাকাবাসি মানববন্ধনে অংশ নেন। শুক্রবার সকালে মোরেলগঞ্জ উপজেলার শেখপাড়া বাজারে যুবলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য নাজমুল হাসান রানাকে মারধর করে চোখ উপড়ে ফেলার প্রতিবাদ ও জড়িতদের বিচারের দাবির এলাকাবাসির উদ্যোগে এ বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দেন, চোখ উপড়ে ফেলা মামলার বাদী রানার বড় ভাই মো. ফারুক হাওলাদার, আওয়ামী লীগ নেতা মোশারেফ হোসেন, মোস্তফা হাওলাদার, খোকন হাওলাদার, মনিরুজ্জামান বিজয়, বাহাদুর খান, খায়রুল ইসলাম বাবু, শাহিদা বেগম, রোকেয়া বেগম, ফরিদা বেগম প্রমুখ।


বক্তারা বলেন, লিয়াকত কাজী, রাসেল, শাহজালাল আকনসহ একটি সংঘবদ্ধ জামায়াত ও বিএনপির সন্ত্রাসীরা রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারনে রানাকে নির্মমভাবে মারপিট করে রানার চোখ উপরে ফেলেছে। রানার উপর এ ধরণের বর্বোরচিত হামলার সাথে যারা জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানান তারা। এই সন্ত্রাসীরা তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় মসজিদের ইমাম হাফেজ সিদ্দিকুর রহমানকে মারধর করে।
প্রত্যক্ষদর্শী আবুবকর সিদ্দিক ও বাদশা জানান, আমরা মোরেলগঞ্জে বাগেরহাট-৪ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এ্যাড. আমিরুল আলম মিলনের সাথে দেখা করে মটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফিরছিলাম। শেখপাড়া বাজারে পৌছালে দড়ি দিয়ে রাস্তা বেরিকেড দিয়ে আমাদের এলোপাথারি মারধর শুরু করে। এক পর্যায়ে প্রাণ বাঁচাতে খাল সাতরে ওপারে যায় রানা। ৫-৬ জন খাল পাড় হয়ে ওপারে গিয়ে রানাকে ধরে আরও বেশি মারপিট করে। রানার হাত-পা ভেঙ্গে দেয়। তারপর রানার দুই চোখ ছুরি দিয়ে খুচিয়ে উপড়ে ফেলার চেষ্টা করে। আমরা হামলাকারীদের সঠিক বিচার চাই।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাত ১টার দিকে বাগেরহাট-৪ আসনের উপ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আমিরুল আলম মিলনের সাথে দেখা করে বাড়ি ফেরার পথে উপজেলার শেখপাড়া বাজার এলাকায় পৌছালে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা ১৫-২০ জন রানার উপর হামলা করে। বর্তমানে ঢাকা চক্ষু ইনষ্টিটিউট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
মোরেলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কেএম আজিজুল ইসলাম জানান, এঘটনায় এজাহার নামীয় ৩ আসামীদের গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।