বাগেরহাটে সেচ্ছাশ্রমে মাস্ক তৈরি, সাড়ে সাত টাকা দরে বিক্রি

নিজস্ব প্রতিবেদক. বিভিন্ন দূর্যোগ ও জরুরী অবস্থায় দেশের ব্যবসায়ীরা পন্যের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে দাম বৃদ্ধিতে ব্যস্ত থাকে। বর্তমান সময়ের সব থেকে ভয়ঙ্কর সংকট নোভেল করোনা ভাইরাসের দোহাই দিয়েও নিজেদের পকেট ভারী করায় ব্যস্ত অনেক ব্যবসায়ী। ১০ টাকার মাস্ক ৩০ টাকা থেকে শুরু করে ১‘শ-২‘শ টাকাও বিক্রি করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা। কেউ কেউ আবার হাসপাতালের ব্যবহৃত মাস্ক কুড়িয়ে এনে, ধুয়ে ও শুকিয়ে বিক্রি করছে। চারদিকে অসাধু মানুষ ও ব্যবসায়ীদের মাঝে অতিরিক্ত টাকা আয়ের চিন্তা। সেই মূহুর্তে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে মাস্ক তৈরি করে স্বল্প মূল্যে বাজার জাত করছেন ভূমি বুক ক্যাফে নামের একটি খাবারের প্রতিষ্ঠান ও সিটি ল্যাব যৌথ ভাবে। আর এই মহতী উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছে বাগেরহাটের সুশীল সমাজসহ সাধারণ মানুষ।
শুক্রবার বিকেল থেকে বাগেরহাট প্রেসক্লাব ভবনের তৃতীয় তলায় অবস্থিত ভূমি বুক ক্যাফে তাদের কার্যক্রম বন্ধ রেখে মাস্ক তৈরি শুরু করে। ইতোমধ্যে তারা ৩ হাজার মাস্ক তৈরি করেছে। তারা মোট ১৫ হাজার মাস্ক তৈরি করবেন। আমরা সাড়ে সাত টাকা দরে একটি মাস্ক বিক্রি করছি। এত কম দামে মাস্ক পেয়ে ক্রয় করছেনও অনেকে। এই মূল্যে একজন ব্যক্তি সর্বোচ্চ পাঁচটি মাস্ক ক্রয় করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। নিজেদের তৈরিকৃত মাস্ক ইতোমধ্যে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কাছে বিক্রি করেছে প্রতিষ্ঠানটি।
ভূমি বুক ক্যাফে কর্তৃপক্ষ বলছে, শুধু ব্যবসার উদ্দেশ্যে নয় সেবার মানসিকতা নিয়ে আমরা এই প্রতিষ্ঠান গড়েছি। আমরা জানি প্রাণ বাঁচলে, মানুষ বাঁচলে ব্যবসা আরো হবে। যারা ভূমি’র কাস্টমার তারাই ভূমি’র প্রকৃত মালিক। তারা থাকলে এই প্রতিষ্ঠান থাকবে, তারা না থাকলে এই প্রতিষ্ঠান থাকবে না। ক্রেতা, আমাদের নিজস্ব কর্মী ও জনসাধারণের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করেই আমরা এই উদ্যোগ নিয়েছি।
ভূমি বুক ক্যাফে‘র কর্মকর্তা মীর জায়েসী আশরাফি জেমস বলেন, কোন প্রকার জনসমাগম এড়াতে আমরা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করেছি। বাজারে বেশি দামে মাস্ক বিক্রি হচ্ছে। যার ফলে হতদরিদ্র ও সাধারণ মানুষ মাস্ক ক্রয় করতে হিমশিম খাচ্ছে। তাই ভুমি বুক ক্যাফে ও সিটি ল্যাবের কর্মীরা মিলে স্বেচ্ছা শ্রমে মাস্ক তৈরি করে সরঞ্জামের মূল্য হিসেবে মাত্র সাড়ে সাত টাকায় বিক্রি করছি। একজন ব্যক্তি আমাদের কাছ থেকে একসাথে ৫টি মাস্ক ক্রয় করতে পারবেন। মুঠোফোনে অর্ডার দিয়েও মাস্ক সংগ্রহ করতে পারবেন বলে জানান তিনি।