১৭ বছর ধরে একাই দুই নামের ভাতা তুলছেন ইউপি সদস্যের মা

মোঃ শহিদুল ইসলাম, বাগেরহাট:
বাগেরহাটের ফকিরহাটে ১৭ বছর ধরে একাই দুই নামের বিধবা ভাতা উত্তোলন করছেন এক নারী ইউপি সদস্যের মা মোসাঃ দোলেছা বেগম।ফকিরহাট উপজেলার লখপুর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য তাছলিমা বেগম লতার মা এই ভাতা উত্তলোন করে আসছেন। বিষয়টি কর্তৃপক্ষের নজরে আসলে সোমবার (১৫ জুন) দুপুরে দোলেছা ও দেলেছা নামের বই দুটি জব্দ করেছে উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোঃ সবুর আলী।
সমাজ সেবা কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৯ সালে বাড়ইডাঙ্গা গ্রামের মৃত ওহাব মোড়লের স্ত্রী দোলেছা বেগমের নামে একটি বিধবা ভাতা চালু হয়। ২০০৩ সালে দোলেছা বেগম নিজের ও স্বামীর নাম পরিবর্তণ করে আবারও বিধবা ভাতার আবেদন করেন। সেখানে তিনি নিজের নাম দেলেছা বেগম ও স্বামী মৃত আঃ ওহাব হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। এই দোলেছা বেগমের মেয়ে তাছলিমা বেগম লতা ওই এলাকার সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য হওয়ায় যাচাই বাঁচাই ছাড়াই সমাজ সেবা অফিসে পাঠায়। একই ব্যক্তির নামে দুটি ভাতা চালু হয়ে যায়। এরপর থেকে এই পর্যন্ত দুই নামেই ভাতা উত্তোলন করে আসছেন সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য তাছলিমা বেগম লতার মা মোসাঃ দোলেছা বেগম। এ বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয়রা সমাজ সেবা কার্যালয়ে জানায়। পরে সমাজ সেবা কার্যালয় থেকে দোলেছা বেগম ও দেলেছা বেগম নামের বই দুটি জব্দ করা হয়।
দোলেছা বেগমের মেয়ে লখপুর ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্যতাছলিমা বেগম লতা কে বার বার ফোন দিলেও তার নাম্বার বন্ধ পাওয়া গেছে।
লখপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আবুল হোসেন বলেন, আমি ২০১১ সালে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হই। এর আগে যেসব ঘটনা ঘটেছে সেটা আমার দেখার সুযোগ ছিলনা। যে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে সেটা দেশের প্রচলিত আইনে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থ্যা গ্রহন করার আশ্বাস দেন তিনি।
উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোঃ সবুর আলী বলেন, এলাকাবাসীর খবরের ভিত্তিতে আমরা বিষয়টি জানতে পেরে বেলেছা ও দোলেছা বেগমের বই দুটি জব্দ করা হয়েছে। প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করেছি। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তরে একটি অভিযোগ দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।
ফকিরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহনাজ পারভীন বলেন বিষয়টি শুনেছি। ষড়জমিন তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।