মোংলায় চিংড়ি ঘের দখল ও মাছ লুট, প্রতিপক্ষের হামলায় নারীশিশুসহ আহত-৭

নিজস্ব প্রতিবেদক. বাগেরহাটের মোংলায় চিংড়ি ঘের দখল নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলা মহিলা ও শিশু সহ ৭জন গুরুত্বর জখম হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার আগা মাদুরপাল্টা গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এমনকি হামলাকারীদের মারধরে আহতদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতলে যেতে বাঁধা প্রদান এবং অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। এ সময় চিংড়ি ঘের দখল ও মাছ লুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আগামাদুরপাল্টা গ্রামের সুরেশ ঢালী তার পৈত্তিক সূত্রের ৫ একর জমিতে বিগত কয়েক বছর ধরে চিংড়ি চাষ করে আসছিলেন। সম্প্রতি এ জমির রেকডীয় মালিকানা দাবী করে নানাভাবে হয়রানী করে আসছিল জয়খাঁ গ্রামের অমিত মন্ডল। আর এ নিয়ে রেকর্ড সংশোধনীর মামলা ও আইনী লড়াই চলে আসছে বিবাদওমান দু’গ্রুপের। এ অবস্থায় মঙ্গলবার দুপুরে অমিত মন্ডল ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা মতি মোল্লা নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র সহ ৩০/৩৫ জনের একদল লাঠিয়াল বাহিনী সুরেশ ঢালীর চিংড়ি ঘেরে আকস্মিক হামলা চালায়। এ সময় দখলকারীদের হামলায় সুজিত ঢালী(৩৯), বিউটি ঢালী,(২৮), স্বরস্বতি ঢালী (৫৬), সোনালী ঢালী (২৯)কালীদাস শিকদার(৩৬), সুচিত্রা মন্ডল(২৭) রক্তাক্ত জখম হয়। এ ছাড়া হামলাকারীদের রোষানলের শিকার হয়েছে দু’বছরের এক শিশুও। হামলাকারীরা চিংড়ি ঘেরে বাসায় আহরিত বিপুল পরিমান মাছ লুট, জাল ছেড়া সহ প্রায় ২ ঘন্টা ব্যাপী এ তান্ডব চালায় । এ ছাড়া আহতরা রক্তাক্ত অবস্থা চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাদের ধাওয়া করে অবরুদ্ধ রাখা হয়। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় বিকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় আহতদের। এ দিকে ঘের দখল ও হামলা মারধরের ঘটনা প্রসঙ্গে সুবেশ ঢালী অভিযোগ করেন-ভুলে রেকর্ড হওয়া জমির মালিকানা দাবী করে প্রতিপক্ষরা জবরদখলের জন্য এ হামলা চালায়। তবে এ বিষয় জানতে চাইলে রেকর্ডীয় সূত্রে জমির মালিকানা দাবী করে অমিত কুমার মন্ডল জানান, এ বিষয় নিয়ে কয়েক দফায় শালিস বৈঠক হয়েছে। আমার জামি ও ঘের আমি দখলে নিয়ে আর তা পুলিশ ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সব কিছু জানেন। ঘটনার পর পরই চিংড়ি ঘের এলাকা পরিদর্শন ও পর্যবেক্ষন করে মোংলা থানা পুলিশ।
মোংলা থানার এস আই লিটন বিশ্বাস জানান, চিংড়ি ঘেরটিতে দুপুরে একদল লোক অবস্থান ও দখল নেয়ার চেষ্টা করে। তবে দখলকারীদের কাউকে ঘেরটিতে পাওয়া যায়নি। হামলা ও মারধরের ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।