সুন্দরবনে বিষদিয়ে মাছ আহরণ, ৬ জেলেসহ বিষ বিক্রেতা আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক. সুন্দরবন থেকে অবৈধভাবে বিষ দিয়ে মাছ আহরণের অভিযোগে ৬ জেলে ও একজন বিষ বিক্রেতাকে আটক করেছে পুলিশ।বুধবার (২৯ জুলাই) সকালে সুন্দরবনের সুন্দরতলা খাল এলাকায় মাছ ধরার সময় অভিযান চালিয়ে বিষ প্রয়োগে আহরিত বিভিন্ন প্রজাতির মাছ, জাল, নৌকাসহ ৬ জেলেকে আটক করে মোংলা থানা পুলিশ। পরবর্তীতে ওই জেলেদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বৈদ্যমারী বাজার থেকে আলামিন (৪০) নামের এক বিষ বিক্রেতাকে ২০ বোতল কীটনাষকসহ আটক করে পুলিশ। আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের পূর্বক বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) সকালে বাগেরহাট আদালতে সোপর্দ করা হবে।
বুধবার (২৯ জুলাই) দুপুরে মোংলা থানা চত্বরে এক সংবাদ সম্মেলনে মোংলা সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আসিফ ইকবাল এসব তথ্য জানান। এসময় মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরীসহ পুলিশের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
আটকৃ জেলেরা হলেন, মোংলা উপজেলার চিলা ইউনিয়নের সুন্দরতলা এলাকার মৃত সুধির মন্ডলের ছেলে শিবপদ মন্ডল (৪২), মৃত নরেন রায়ের ছেলে গোবিন্দ রায় (৩৫), মোঃ আকবর আলি শেখ’র ছেলে মোঃ দুলাল শেখ (২৫), মৃত সুলতান ফকিরের ছেলে আরিজুল ফকির ( ৩৫), বিজয় রায়ের ছেলে সুব্রত রায় (২৫) ও আফজাল শেখের ছেলে আমিন শেখ (১৯)। বিষ বিক্রেতা আল আমিন সুন্দরবন ইউনিয়নের কাটাখালি এলাকার সুলতানের ছেলে।
সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আসিফ ইকবাল বলেণ, বর্তমানে সুন্দরবনে প্রবেশ ও সুন্দরবনের সকল খালে মাছ ধরা নিষেধ স্বত্তেও কিছু অসাধু জেলে সুন্দরবনে প্রবেশ করে মাছ আহরণ করে। নিয়মিত টহলের অংশ হিসেবে সুন্দরতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে আমরা মাছ আহরণের সময়ের ৬ জেলেকে আটক করি। পরবর্তীতে জেলেদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বৈদ্যমারী বাজারে অভিযান চালিয়ে বিষ বিক্রেতা আলআমিনকে আটক করা হয়। এসময় আল আমিনের দোকান থেকে লিডার, সুপারথ্রিন, সাইপারমেথিন এই চারটি গ্রুপের ২০ বোতল বিষ জব্দ করা হয়।জেলেদের কাছ থেকে বিষ দিয়ে শিকার করা ছয় ক্যারেট বিভিন্ন প্রজাতির চিংড়িং ও সাদা মাছ, বাধা জাল ও একটি ট্রলার জব্দ করা হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে বনাঞ্চলের জলাভুমিতে কীটনাশক প্রয়োগের অভিযোগে মামলা দায়ের পূর্বক আদালতে সোপর্দ করা হবে বলে জানান তিনি।