মোংলা সুতার গোডাউনের আগুন নিয়ন্ত্রণে,তদন্ত কমিটি গঠন

নিজস্ব প্রতিবেদক. বাগেরহাটের মোংলা ইপিজেডের গুয়াংজু হুয়াস্যাং সাইন্স এন্ড টেকনোলজি নামের সুতার ফ্যাক্টরীর গোডাউনের আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) ভোর ৬ টার দিকে লাগা আগুন সন্ধ্যা সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত সম্পূর্ণ নেভাতে সক্ষম হয়নি ফায়ার সার্ভিস। বাগেরহাট ও মোংলা ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিটের অভিযান এখনও অব্যাহত রয়েছে।ক্রেন দিয়ে গোডাউনের তুলা সরিয়ে আগুন সম্পূর্ণ রুপে নেভানোর চেষ্টা করছেন ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

এদিকে গোডাউনে অগ্নি কি পরিমান ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, বা কেন আগুন লেগেছে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কোন থকা বলেননি ফ্যাক্টরী কর্তৃপক্ষ।অগ্নিকান্ডের কারণ অসুন্ধানে ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন মোংলা ইপিজেড কর্তৃপক্ষ।

বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারি পরিচালক (ডিএডি) গোলাম সরোয়ার বলেন, তুলার গোডাউন হওয়ায় আগুন নেভানো অনেক কষ্টসাধ্য।নেভাতে আমরা বাগেরহাট ও মোংলা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের পাঁচটি ইউনিট কাজ করছি।আমরা আগুন নিয়ন্ত্র্রণে এনেছি। কিন্তু এখনও সম্পূর্ণরুপে আগুন নেভানো যায়নি। গোডাউনের ভেতরে তুলার নিচে এখনও আগুন রয়েছে। আমরা তুলোর স্তুপে পানি দিচ্ছি। স্ট্রেচার দিয়ে তুলা সরিয়ে গোডাউনটিকে সম্পূর্ণভাবে আগুন মুক্ত করার চেষ্টা করছি। গোডাউন সম্পূর্ণভাবে আগুন মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

মোংলা ইপিজেডের জেনারেল ম্যানেজার মো. মাহাবুব আহমেদ ছিদ্দিক জানান, আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।ফায়ার সার্ভিসের একাধিক টিম এখনও কাজ করছে। আমরা অগ্নিকান্ডের কারণ জানতে মোংলা ইপিজেডের ডেপুটি ম্যানেজার মোঃ জহিরুল ইসলামকে প্রধান করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। আগামী তিন কর্ম দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দেওয়ার কথা রয়েছে। তবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সম্পর্কে ওই কোম্পানি আমাদেরকে কিছু জানায়নি। কোম্পানির লোকেরা জানালে আমরা জানাতে পারব।

গুয়াংজু হুয়াস্যাং সাইন্স এন্ড টেকনোলজি নামের সুতার ফ্যাক্টরীতে ৮০ জন দেশী ও ৭ জন চীনা শ্রমিক রয়েছে।