বাগেরহাটে শিশু চুরি যাওয়ার ৭ দিন পরে মৃত উদ্ধার

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে মা-বাবার কোল থেকে ঘুমন্ত শিশু চুরির সাতদিন পরে মৃত অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। আটক শিশু চুরির মূল হোতা হৃদয়ের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রবিবার (১৭ মার্চ) দুপুর ১২টায় উপজেলার বিশারিঘাটা এলাকার আব্দুর রহমান শিকারীর ঘেরের টয়েলেটের স্লাবের ( ট্যাংকি) মধ্য থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।


উদ্ধার অভিযানে মোরেলগঞ্জ সাকের্লের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রিয়াজুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান, সহকারি কমিশনার(ভূমি) মো. মেজবাহ উদ্দিন, থানার ওসি কেএম আজিজুল ইসলাম, বাগেরহাট জেলা ডিবি পুলিশের ওসি মো. রেজাউল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। এর আগে শনিবার (১৬ মার্চ) রাজধানীর সায়েদাবাদ থেকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন(পিবিআই)-এর একটি টিম শিশু চুরির মূলহোতা হৃদয় চাপরাশিকে আটক করে। হৃদয় মোরেলগঞ্জ উপজেলার নিশান বাড়িয়া এলাকার মোয়াজ্জেম চাপরাশীর ছেলে। হতভাগা শিশু আব্দুল্লাহর পিতা সোহাগ হাওলাদার বলেন, আমি যেমন পুত্রহারা হয়েছি আর কেউ যেন এমন পুত্রহারা না হয়। এদিকে নিজের সন্তানের মরদেহ উদ্ধারের খবর শোনার পর থেকে অচেতন অবস্থায় রয়েছে আব্দুল্লাহর মাসে রেশমা বেগম। মোরেলগঞ্জ সাকের্লের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রিয়াজুল ইসলাম বলেন, শিশুটি চুরির খবরের পর থেকে আমাদের একাধিক টিম অভিযান চালিয়ে মোট ৬ জনকে আটক করেছে। আটক মূলহোতা হৃদয় চাপরাশির উপজেলার বিশারিঘাটা এলাকার আব্দুর রহমান শিকারীর ঘেরের টয়েলেটের স্লাবের ( ট্যাংকি) মধ্য থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য হৃদয়সহ অন্যান্য আটকদের আাদলতে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। এ ঘটনায় জড়িত অন্যান্যদের আটকের জন্য অভিযান চলছে।


উল্লেখ্য, সোমবার (১১ মার্চ) ভোর রাতে আগে বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার বিশারীঘাটা গ্রামেপিতা-মাতার শোবার ঘর থেকে ৭৫ দিন বয়সী শিশুআব্দুল্লাহকে চুরি করে দুর্বৃত্তরা। এরপর থেকে চুরিরসময় নেয়া আব্দুল্লাহর-র পিতা সোহাগ হাওলাদেরর মুঠোফোন থেকে ফোন করে ১০ ল¶ টাকা মুক্তিপন দাবি করে দুর্বৃত্তরা। পরে মঙ্গলবার (১৩ মার্চ) গভীর রাতে মোরেলগঞ্জউপজেলার নিশান বাড়িয়া এলাকার হৃদয় চাপরাশিরবাড়ি থেকে শিশু আব্দুল্লাহর পিতা সোহাগহাওলাদারের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন উদ্ধার করেপুলিশ। এসময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হৃদয়ের মা মোয়াজ্জেম চাপরাশীর স্ত্রী নাছিমা বেগম(৫২), বোন আবির আক্তার (১৪),হৃদয়ের চাচাতো ভাই সোবাহানচাপরাশীর ছেলে মহিউদ্দিন চাপরাশী(৩৫) ও রশিদচাপরাশীর ছেলে ফায়জুল চাপরাশী (২৫), রুবেল (৩০) কে আটক করে পুলিশ।