দুরারোগ্য ব্যাধীতে আক্রান্ত মেয়েকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

নিজস্ব প্রতিবেদক.
বাগেরহাটে ১৪ বছরের সন্তানকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তার মা জেসমিন সুলতানা । বাগেরহাট জেলার কচুয়া উপজেলার মাদারতলা গ্রামের মৃত মাসুদ আলী খানের মেয়ে হাদিয়া তাহসিন। বয়সের অনুপাতে তার শারীরিক গঠন,উচ্চতা ও ওজন খুবই কম। ঠিক ভাবে কথাও বলতে পারছেনা হাদিয়া। কারন হাদিয়া দূরারোগ্য ব্যাধী সিস্টেমাটিক লুপাছ এরিথেমেটোছাস (এসএলই ) রোগে আক্রান্ত।


বাগেরহাট সিভিল সার্জন জি,কে,এম শামসুজ্জামান বলেন,এখন পর্যন্ত এ রোগের সঠিক কোন চিকিৎসা আবিস্কার হয়নি। তবে প্রাথমিক পর্যায়ে সনাক্ত করতে পারলে নির্দিষ্ট নিয়ম মেনে ও ঔষধ সেবনে স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারে। আর রোগীকে সুস্থ রাখতে হলে দীর্ঘ দিন ধরে ঔষধ সেবন করে যেতে হয়।
হাদিয়ার মা জেসমিন সুলতানা বলেন, ‘আমার স্বামী ২০১৫ সালে টিবি রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায়। আমার অনার্স পাশ করা বড় মেয়ের টিউশনিতে কোন রকমে খেয়ে না খেয়ে আমাদের সংসার চলে। চার বছর আগে প্রথমে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসকের কাছে আসি। পরে তাদের পরামর্শে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ,পরে মহাখালী বক্ষ্যব্যাধীতে এক বছর চিকিৎসা করি। পিজি হসপিটালের বর্হি বিভাগে চিকিৎসা করেও তেমন কোন ভাল ফল পাই নি। পরে ঢাকা মেডিকেলে এক বছর চিকিৎসা করেও তেমন কোন উন্নতি না হওয়ায় ধার করে ও জমি জমা বিক্রী করে ইন্ডিয়ার ভ্যালোরে সিএমসিতে হাদিয়াকে চিকিৎসা করাই। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে পরীক্ষা নিরিক্ষা করে জানান। তার উন্নত চিকিৎসার জন্য অনেক অর্থের প্রয়োজন।
তিনি আরও বলেন, কয়েক বছর মেয়ের চিকিৎসা চালিয়ে রাখতে নিজেদের সহায় সম্বল সব হারিয়েছি। দেনাগ্রস্থ হয়ে পড়েছি। আমার পক্ষে আর খরচ চালিয়ে যাওয়া কোন ভাবেই সম্ভব নয়। আমি আমার মেয়েকে বাচাতে চাই। মেয়েকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীসহ দেশের বিত্তবানদের সহযোগিতা চেয়েছেন জেসমিন সুলতানা। হাদিয়া এখন ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সহযোগিতা পাঠাতে যোগাযোগ করুণ,নাম- মোসাঃ জেসমিন সুলতানা, সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক,বাগেরহাট শাখা,এ্যাকাউন্ট নং-০৮৮১৩৪০০১৯১৩১,বিকাশ-০১৭৯২-৪৬৩৫৭৫,০১৯৯৪-৯৪৮৩৯৯।