বাগেরহাটে বৃদ্ধ নারীকে কুপিয়ে মালামাল লুট

alorpotha logo

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাগেরহাটে হামিদা বেগম (৬৪) নামের এক বৃদ্ধ নারীকে কুপিয়ে টাকা পয়সা ও মালামাল লুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার (২৬ মে) দুপুরে মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আহত নারীর জ্ঞান ফেরেনি বলে জানিয়েছেন তার পরিবার। বাগেরহাট মডেল থানা পুলিশ ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

হামিদা বেগম সদর উপজেলার কাঠাল  (মেগনিতলা) গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকুরীজীবী মৃত আব্দুল মজিদ পাইকের স্ত্রী। দুই কন্যা সন্তানকে বিয়ে দেয়ায় হামিদা একাই থাকতেন স্বামীর বাড়িতে।

পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, প্রতিদিনের মত রাতে খেয়ে ঘুমিয়ে ছিলেন হামিদা বেগম। তার ছোট মেয়ে নাসিমা মাকে ফোনে না পেয়ে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে  বাড়িতে এসে ঘর তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পায়। পরে কোন সারা শব্দ না পাওয়ায় প্রতিবেশীদের নিয়ে পিছনের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে দোতলায় মেঝেতে মুমূর্ষ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে মাকে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর পরিদর্শক মঞ্জুরুল হাসান মাসুদ বলেন, ঘটনাস্থলে এসে আমরা আলামত সংগ্রহ ও তদন্ত শুরু করি। আশা করি এ ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের সনাক্ত করতে সক্ষম হব। তবে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে ওই বৃদ্ধ নারী একা বাসায় থাকার কারণে অর্থ ও মালামাল লুটের জন্যই পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যার চেস্টা চালিয়েছে।

বাগেরহাটে হামিদা বেগম (৬৪) নামের এক বৃদ্ধ নারীকে কুপিয়ে টাকা পয়সা ও মালামাল লুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। রবিবার (২৬ মে) দুপুরে মুমুর্ষ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আহত নারীর জ্ঞান ফেরেনি বলে জানিয়েছেন তার পরিবার। বাগেরহাট মডেল থানা পুলিশ ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

হামিদা বেগম সদর উপজেলার কাঠাল  (মেগনিতলা) গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকুরীজীবী মৃত আব্দুল মজিদ পাইকের স্ত্রী। দুই কন্যা সন্তানকে বিয়ে দেয়ায় হামিদা একাই থাকতেন স্বামীর বাড়িতে।

পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, প্রতিদিনের মত রাতে খেয়ে ঘুমিয়ে ছিলেন হামিদা বেগম। তার ছোট মেয়ে নাসিমা মাকে ফোনে না পেয়ে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে  বাড়িতে এসে ঘর তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পায়। পরে কোন সারা শব্দ না পাওয়ায় প্রতিবেশীদের নিয়ে পিছনের দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে দোতলায় মেঝেতে মুমূর্ষ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে মাকে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) এর পরিদর্শক মঞ্জুরুল হাসান মাসুদ বলেন, ঘটনাস্থলে এসে আমরা আলামত সংগ্রহ ও তদন্ত শুরু করি। আশা করি এ ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের সনাক্ত করতে সক্ষম হব। তবে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে ওই বৃদ্ধ নারী একা বাসায় থাকার কারণে অর্থ ও মালামাল লুটের জন্যই পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যার চেস্টা চালিয়েছে।