বাগেরহাটে আক্রান্ত ১৫, ডেঙ্গু প্রতিরোধে ৬ আগষ্ট জেলাব্যাপী সমন্বিত কর্মসূচি ঘোষণা

নিজস্ব প্রতিবেদক.
বাগেরহাটে ডেঙ্গু মশা প্রতিরোধে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা জন্য জেলাব্যাপী সমন্বিত কর্মসূচি ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। আগামী ৬ আগষ্ট ডেঙ্গু মশা প্রতিরোধে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করতে একযোগে জেলার সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেবে। রোববার দুপুরে বাগেরহাটের জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে এক প্রস্তুতিমূলক সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি ও সাংবাদিকরা অংশ নেন।
কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে জেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সরকারি, আধা সরকারি, হাট বাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থান আঙ্গিনা, বাড়ির পাশের ঝোপঝাড় ও ড্রেন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা। ড্রেনগুলোতে ফগার মেশিন দিয়ে মশা মারতে ওষুধ ছিটানো। ৬ আগষ্ট সকাল দশটা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত বাগেরহাটের নয় উপজেলায় এই পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার অভিযান চালাবে জেলা প্রশাসন।
বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন বাগেরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও স্থানীয় সরকার শাখার উপপরিচালক দেবপ্রসাদ পাল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) কামরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাদাৎ হোসেন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দীন, ও বাগেরহাট প্রেসক্লাবের সভাপতি আহাদ উদ্দীন হায়দার।
বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ বলেন, প্রস্তুতিমূলক সভা করে ডেঙ্গু মশা প্রতিরোধে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা জন্য জেলাব্যাপী সমন্বিত কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। এই অভিযানে সর্বস্তরের মানুষ অংশ নেবেন। আগামী ৬ আগষ্ট সকাল দশটা থেকে দুপুর একটা পর্যন্ত এই কর্মসূচি চলবে।
এছাড়া বাগেরহাট স্বাস্থ্য বিভাগও ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভা করেছে।
এদিকে, গত এক সপ্তাহে বাগেরহাটে ১৫ জনের শরীরে ডেঙ্গু রোগের উপস্থিতি সনাক্ত করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। ডেঙ্গু জ¦রে আক্রান্তদের হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এদের মধ্যে বর্তমানে পাঁচজন হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। বাগেরহাট ডেঙ্গুতে এখন পর্যন্ত যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের অধিকাংশই ঢাকা থেকে আসা।


বাগেরহাটের সিভিল সার্জন জি কে এম শামসুজ্জামান বলেন, বাগেরহাটে গত এক সপ্তাহে ১৫ জনের শরীরে ডেঙ্গুর উপস্থিতি সনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচজনকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
তারা ডেঙ্গু রোগ নির্ণয় করতে সদর হাসপাতালে একটি সেল চালু করেছে। রোগের উপসর্গ কারাও মধ্যে দেখা দিলে তাকে হাসপাতালে পরীক্ষার জন্য আসতে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। সরকারি হাসপাতালগুলোতে বিনামূল্যে ডেঙ্গু পরীক্ষার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। স্বাস্থ্যকর্মীরা সবাই একযোগে কাজ করছেন।
বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দীন বলেন, সদর উপজেলার দশ ইউনিয়নের মানুষকে সচেতন করতে স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষকদের নিয়ে সভা করা হয়েছে। ওই সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা রাখতে কাজ করছে সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরাও স্ব স্ব এলাকায় সচেতনতামূলক সভা সমাবেশ করছেন। এছাড়া ডেঙ্গু মশা নিধন করতে উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ১১ টি ফগার মেশিন কেনা হয়েছে। এই মেশিন দিয়ে মশা নিধন কার্যক্রম পরিচালনা করার ব্যবস্থা করা হয়েছে।