বাগেরহাটে এবার কৃষকদের ধান কেটে দিলেন মৎস্য জীবীলীগের নেতাকর্মীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক. করোনা পরিস্থিতি ও বৃষ্টিতে শ্রমিক সংকটের কারণে পাকা ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা। এরই মধ্যে এবার বাগেরহাটের কচুয়ায় কৃষকদের ধান কেটে দিলেন বাগেরহাট আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের নেতাকর্মীরা। বুধবার (২৯ এপ্রিল)সকালে কচুয়া উপজেলার টেংরাখালি গ্রামের কৃষক সাইফুর রহমানের তিন বিঘা জমির ধান কেটে দেয় নেতাকর্মীরা। মৎস্যজীবী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে কচুয়া উপজেলা কৃষক লীগের নেতাকর্মীরাও অংশগ্রহন করেন স্বেচ্ছাশ্রমে ধান কাটা কর্মসূচিতে।

এসময় বাগেরহাট জেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি শেখ আব্দুর সবুর, কচুয়া উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান শিকদার হাদিউজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক মওলা ব্যাপারী, সদর উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি মোঃ জাকির হোসেন, কচুয়া উপজেলা সভাপতি রিপন শিকদার, মৎস্যজীবী লীগ নেতা আব্দুস সালাম মল্লিক, চামেলী বেগম, শিশির সাহ, ওবায়দুল, রুহুল, ইমরান, শোহান শেখ, সলেমান, বেল্লাল শেখসসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
করোনা পরিস্থিতি ও অতি বৃষ্টির মধ্যে পাকা ধান কেটে দেওয়ায় খুশি হয়েছেন কৃষকরা। কৃষক মোঃ সাইফুর রহমান বলেন, বৃষ্টির মধ্যে পাকা ধান নিয়ে খুব চিন্তায় ছিলাম। এর মধ্যে মৎস্যজীবী লীগের নেতারা আমাদের ধান কেটে দিয়েছেন। আমি খুব খুশি হয়েছি।
কচুয়া উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি রিপন শিকদার বলেন, করোনা পরিস্থিতি ও অতি বৃষ্টির মধ্যে পাকা ধান নিয়ে সমস্যায় পড়েছিল কৃষকরা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়ের নির্দেশে আমরা উপজেলার হতদরিদ্র, গরীব ও বর্গা চাষীদের ধান কেটে দিচ্ছি। সকল কৃষকের ধান কাটা শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই ধান কাটা অব্যাহত থাকবে।
বাগেরহাট সদর উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি মোঃ জাকির হোসেন বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে আমরা কৃষকের পাশে আছি।যেকোন দূর্যোগে আমরা কৃষকদের পাশে থাকব।
কচুয়া উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ও কচুয়া সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শিকদার হাদিউজ্জামান বলেন, বোরা মৌসুমে দক্ষিনাঞ্চলের কৃষকরা ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে ধান রোপন করেছিল। কিন্তু করোনা পরিস্তিতিতে শ্রমিক সংকটের কারণে কৃষকরা ধান ঘরে তোলা নিয়ে শঙ্কায় ছিলেন। তাই আমরা স্বেচ্ছাশ্রমে কৃষকদের ধান কেটে বাড়িতে পৌছে দিচ্ছি। কোন কৃষকদের ধান আমরা মাঠে নষ্ট হতে দিব না। সকল কৃষকের ধান ঘরে তোলা পর্যন্ত আমাদের কর্মীরা মাঠে থাকবে বলে দাবি করেন তিনি।
বাগেরহাট জেলা মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি শেখ আব্দুর সবুর বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের নির্দেশে আমরা কর্মীদের নিয়ে কৃষকদের ধান কেটে দিচ্ছি। অন্যান্য উপজেলায়ও কৃষকদের ধান কাটা হবে। সকল কৃষকদের ধান কাটা শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।