চিতলমারীতে করোনা জয়ী শাহিদুল পেল ইউএনও’র উপহার

নিজস্ব প্রতিবেদক. বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার হিজলা কাজীপাড়া গ্রামের করোনা জয়ী জুট মিলের গাড়ীর চালক কাজী শাহিদুল ইসলাম উপজেলা প্রশাসনের উপহার পেয়েছেন। মঙ্গলবার দুপুরে তার বাড়িতে গিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মারুফুল আলম এ উপহার প্রদান করেন। এসময় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বিকেলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মামুন হাসান মিলন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মারুফুল আলম জানান, করোনা জয়ী কাজী শাহিদুল ইসলাম কুমিল্লার চান্দিনা শাহাদাৎ জুট মিলের গাড়ীর চালক ছিলেন। গত ২০ মে তিনি কুমিল্লা থেকে গ্রামের বাড়িতে আসেন। করোনা উপসর্গ থাকায় তাকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়। পরে তিনি পার্শ্ববর্তী গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় এক আত্মীয়র বাড়িতে যান। সেখানে তিনি আরও অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ২৩ মে টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স তার নমুনা সংগ্রহ করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পাঠায়। ২৪ মে সে পুনরায় চিতলমারীর হিজলায় চলে আসে। ২৫ মে তার রিপোর্ট পজেটিভ আসে। এ খবর পেয়ে এদিন রাতেই আক্রান্ত ব্যাক্তির বাড়িসহ আশেপাশের ৫ বাড়ি লগডাউন করা হয়। পরে সে আরও অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ২৮ মে তাকে খুলনা নুরনগর ডায়াবেটিকস হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সর্বশেষ ৮ জুন তার রিপোর্ট খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে নেগেটিভ আসে। এদিন রাতেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ছাড়পত্র দেন এবং তিনি গ্রামের বাড়ি হিজলায় ফিরে আসেন। মঙ্গলবার সকাল ১১ টায় তার বাড়িতে গিয়ে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে কিছু উপহার প্রদান করা হয়।
এ সময় চিতলমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ বাবুল হোসেন খান ও উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ মাহাতাবুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।
করোনা জয়ী কাজী শাহিদুল ইসলাম বলেন, আল্লাহর অশেষ রহমতে আমি এখন পুরোপুরি সুস্থ্য। চিকিৎসকদের সেবা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সাংবাদিকদের ভালবাসায় আমি মুগ্ধ। আল্লাহর রহমতে এখন আমি পরিবারের সকলকে নিয়ে ভাল আছি।’
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মামুন হাসান মিলন জানান, এ নিয়ে চিতলমারীতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬ জন। এদের মধ্যে পাটলপাড়া গ্রামের মোঃ কবিরুল মোল্লা (৩৫), চরচিংগুড়ী গ্রামের করোনা জয়ী গার্মেন্টস দম্পতি মোঃ ইমরান শেখ (২৫) ও তার স্ত্রী সুমি আক্তার (১৮) সহ মোট ৪ জন সুস্থ্য হয়েছেন। বাকি (দুইজন) চর-কচুড়িয়া গ্রামের শফিকুল হাওলাদার (৩০) ও নালুয়া এলাকার হাবিবুর রহমান মোল্লা (৩৫) বাড়িতে হোম আইসোলেশনে রয়েছেন। #