বাগেরহাটে মামলার বাদিকে কুপিয়ে জখম

নিজস্ব প্রতিবেদক . বাগেরহাটে মামলা তুলে না নেওয়ায় খোদেজা বেগম (৪০) নামে এক নারীকে আবারো কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। খোদেজা বেগম বাগেরহাট সদর উপজেলার ডেমা ইউনিয়নের নাগের ডেমা গ্রামের আজাদ খান স্ত্রী। খোদেজা বেগম গুরুত্বর জখম অবস্থায় বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

হাসপাতালে ভর্তি খোদেজা বেগম জানান, গত ০২রা মার্চ নাগের ডেমা গ্রামের আমজাদ খান ও তার পরিবারের সদস্যরা পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক আমার বসত ঘরে প্রবেশ করে ও আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে আমার মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে গুরুত্বর জখম করে। যাতে ডান হাত ও বাম হাত মারাত্বক জখম হয়ে কয়েকটি আঙ্গুল আলাদা হয়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। শরীরের বিভিন্ন স্থানে ও মাথায় আঘাত প্রচন্ড আঘাত করে। এ সময় ঘর থেকে নগদ টাকা ও স্বর্নাংকার নিয়ে যায় আমজাদ খান ও তার লোকজন। আমাকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আমার গুরুত্বর জখম দেখে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে। কিছুটা সুস্থ্য হয়ে ১৮ই মার্চ আমজাদ খানকে প্রধান আসামী করে ৫ জনকে আসামী করে আদালতে মামলা করি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন সময় আসামীরা ও তাদের লোকজন দিয়ে আমি ও আমার পরিবারকে মামলা তুলে নিতে ও মেরে ফেলার হুমকি দেয়। বৃহস্পতিবার (৩রা সেপ্টেম্বর) সকালে বাড়িতে কাজ করছিলাম। এ সময় স্থানীয় নাগের ডেমা গ্রামের মৃতঃ আলাল খানের ছেলে জুয়েল খান আমাদের বাড়িতে প্রবেশ করে। আমার কাছে মামলা না তোলার কারন জানতে চায়। আমি কোন সৎ উত্তর তাকে না দেওয়ায় আমাকে দা দিয়ে কুপিয়ে আবারো গুরুত্বর জখম করে। স্থানীয়রা দ্রুত এগিয়ে আসলে হামলাকারী জুয়েল পালিয়ে যায়।

তিনি আরো জানান, পরিবারের স্বামী ,সন্তান নিয়ে জীবনে চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছি। যে কোন সময় এলাকার আমজাদ ও তার লোকজন আমাদের পরিবারের সদস্যদের মেরে ফেলেতে পারে বলে জানান।