ধর্মীয় অপ-ব্যাখ্যার কারণে উর্গবাদের সৃষ্টি হয়

নিজস্ব প্রতিবেদক. ধর্ম সৃষ্টি হয়েছে মানুষের কল্যান ও শান্তির জন্য।কোন ধর্ম-ই সহিংসতা ও উগর্গবাদকে প্রশয় দেয়না।ধর্মে বিশ্বাসী লোক কখনও উর্গবাদে জড়াতে পারেনা। ধর্মীয় অপ ব্যাখা উগ্রবাদের জন্মদিতে পারে।একটি দেশ ও জাতিকে ধ্বংস করার জন্য ধর্মীয় নিয়ম নীতির অপব্যাখ্যা দিয়ে মেধাবী তরুণদেরকে উগ্রবাদে ঝুকে পড়ে।যার পরিনতি অনেক ভয়ানক।তাই উগ্রবাদ ও জঙ্গিবাদ রুখতে সকলকে সচেতন হতে হবে।

বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বাগেরহাট পৌরসভা মিলনায়তনে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা দি হাঙ্গার প্রজেক্টের অধীনে বিল্ডিং রেসিলিয়েন্স এগেইনস্ট ভায়োলেন্ট এক্সট্রিমিজম(ব্রেভ) শীর্ষক প্রকল্পের আয়োজনে সচেনতা বৃদ্ধিমূলক সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

বিশিষ্ট্ শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মোজাফফর হোসেনের সভাপতিত্বে সচেতনা মূলক সভায় বক্তব্য দেন বাগেরহাট পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও বাগেরহাট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বাকি তালুকদার, পৌরসভার প্যানেল মেয়র, কাউন্সিলর তানিয়া খাতুন, শরীফা খানম স্বপ্না, আবুল হাসেম শিপন, বাগেরহাট পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী রঞ্জন কান্তি গুহ, দি হাঙ্গার প্রজেক্টের খুলনা বিভাগীয় কো-অর্ডিনেটর মাসুদুর রহমান রঞ্জু, ব্রেভ প্রকল্পের বাগেরহাট জেলা কো-অর্ডিনেটর রবিউল ইসলাম, সদর উপজেলা কো-অর্ডিনেটর হাফিজুর রহমান প্রমুখ।

আয়োজকরা জানান, দি হাঙ্গার প্রজেক্টের অধীনে বিল্ডিং রেসিলিয়েন্স এগেইনস্ট ভায়োলেন্ট এক্সট্রিমিজম(ব্রেভ) শীর্ষক প্রকল্পটি সহিংস চরমপন্থা রুখতে সাধারণ মানুষের সহনশীলতা বৃদ্ধিতে কাজ করবে। জেলার মোংলা, ফকিরহাট ও বাগেরহাট সদর উপজেলার ২৪টি ইউনিয়ন এবং ‍দুইটি পৌরসভায় কাজ করবে। এই প্রকল্পের আওতায় জনগণের ক্ষমতায়ন, সংগঠিতকরণ, নারীর ক্ষমতায়ন ও জেন্ডার সমতা অর্জন, স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাকে কার্যকর ও শক্তিশালীকরণ এবং বাংলাদেশের ইতিবাচক পরিবর্তনের লক্ষে মৈত্রী জোট গড়ে তোলা হবে।এ বছরের ২৩ মার্চ শুরু হওয়া প্রজেক্টটি ২০২৩ সাল পর্যন্ত বাগেরহাটে কাজ করবে।