মোংলাপোর্ট পৌরসভা নির্বাচন: আ.লীগের আব্দুর রহমান বিজয়ী

নিজস্ব প্রতিবেদক. বাগেরহাটের মোংলা পোর্ট পৌরসভার নির্বাচনে মেয়র পদে এই প্রথম আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শেখ আব্দুর রহমান বিজয়ী হয়েছেন। বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোঃ জুলফিকার আলীকে হারিয়ে আব্দুর রহমান বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন। ১২টি কেন্দ্রে নৌকা প্রতিকে আব্দুর রহমান পেয়েছেন ১২ হাজার ১‘শ ২৫ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী মোঃ জুলফিকার আলী ধানের শীষ প্রতিকে পেয়েছেন ৫‘শ ৯২ ভোট। এছাড়া স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মোকছেদুর রহমান গামা পেয়েছেন ৩৩ ভোট।
এছাড়া ৯ টি সাধারণ ওয়ার্ড এবং ৩ টি সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। বিজয়ী কাউন্সিলররা হলেন, ১ নং ওয়ার্ডে মোঃ কবির হোসেন, ২ নং ওয়ার্ডে এসএম শরিফুল ইসলাম, ৩ নং ওয়ার্ডে মোঃ বাহাদুর মিয়া, ৪ নং ওয়ার্ডে খান শফিকুর রহমান, ৫ নং ওয়ার্ডে মোঃ শরিফুল ইসলাম শরিফ, ৬ নং ওয়ার্ডে জি এম আল আমিন, ৭ নং ওয়ার্ডে হুমায়ুন আহমেদ নাসির, ৮ নং ওয়ার্ডে মোঃ সরোয়ার হোসেন, ৯ নং ওয়ার্ডে মোঃ মজনু গাজী। সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে জয়ী কাউন্সিলর প্রার্থীরা হলেন, ১,২, ৩ নং ওয়ার্ডে জাহানারা আক্তার চানু, ৪,৫,৬ নং ওয়ার্ডে জোহরা বেগম ও ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডে শিউলি আকন।
মোংলা পৌরসভার ১২ টি কেন্দ্রে ১৩৮টি ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীন ভোটে ৩১ হাজার ৫২৮ জন ভোটারের মধ্যে ১২ হাজার ৭‘শ ৫৫ জনভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেণ। এর মধ্যে ৫টি ভোট বাতিল হয়েছে। ১২টি কেন্দ্র্রে ১২ জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট, ২‘শ ২০ জন পুলিশ, র্যা ব, কোস্ট গার্ড, আনাসার ও ডিবি পুলিশ দায়িত্ব পালন করেছেন। ভোট গ্রহনের জন্য ১২ জন প্রিজাইডিং অফিসার ও ৯২ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার দায়িত্ব পালন করছেন।
বাগেরহাট জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও পৌরসবা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরাজি বেনজির আহমেদ বলেন, মোংলা পোর্ট পৌরসভা নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পূর্ণ হয়েছেন। ১২টি কেন্দ্রের প্রাপ্ত ফলাফলে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী শেখ আব্দুর রহমান বিজয়ী হয়েছেন।পরবর্তীতে নির্বাচন কমিশনের নিয়ম অনুযায়ী গেজেট প্রকাশ করা হবে।

এদিকে ভোট কারচুপি, কেন্দ্র দখল, কর্মীদের মারধর, জোরপূর্বক ভোট দেওয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগে সকাল সাড়ে দশটায় বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোঃ জুলফিকার আলী ভোট বর্জন করেন। তার সাথে ভোট বর্জন করেন বিএনপি সমর্থিত ১২জন কাউন্সিলর ও সতন্ত্র দুই জন কাউন্সিলর প্রার্থী।দুপুরের দিকে ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সমর্থিত ৯ কাউন্সিলর প্রার্থী এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের তিন কাউন্সিলর প্রার্থী ছাড়া অন্য ২১ কাউন্সিলর প্রার্থীও ভোট বর্জন করেন।