রাত পোহালেই ভোট, কেন্দ্রে নির্বাচনী সামগ্রী, ব্যালট যাবে সকালে

নিজস্ব প্রতিবেদক. রাত পোহালেই বাগেরহাট জেলার মোরেলগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন।নির্বাচন অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন নির্বাচন কমিশন। শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) বিকেলে মোরেলগঞ্জ পৌরসভার ৯ টি কেন্দ্রে ভোট বাস্ক, সিল, মার্কার পেনসহ ভোট গ্রহনের জন্য আনুসঙ্গিক সামগ্রী কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে।দায়িত্বে থাকা আনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও ভোটগ্রহন কর্মকর্তারা কেন্দ্রে পৌছেছেন। তবে এই পৌরসভায় ভোট গ্রহনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যালট পেপার কাল শনিবার(৩০ জানুয়ারি) সকালে ভোট শুরুর আগে কেন্দ্রে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ফরাজী বেনজীর আহমেদ।

মেয়র পদে বর্তমান মেয়র আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মনিরুল হক তালুকদার বিনা প্রতিদন্দীতায় এই পৌরসভায় শুধুমাত্র কাউন্সিলর পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডে ৪৩ জন এবং ৩টি সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে ১২জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করছেন। ৯টি কেন্দ্রে ১৬ হাজার ৫‘শ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।এর মধ্যে ৮ হাজার ৮৬ জন পুরুষ এবং ৮ হাজার ৪‘শ ১৪ জন নারী ভোটার রয়েছেন।বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) রাত ৮টায় আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচার প্রচারণা শেষ হলেও কাউন্সিলর প্রার্থী ও সমর্থকরা ছুটছেন ভোটারদের বাড়ি বাড়ি। রাস্তা ঘাটের উন্নয়ন, ব্যক্তিগত সম্পর্ক বৃদ্ধি, নির্বাচিত হলে সামাজিক সুবিধা নিশ্চিতসহ নানা প্রতিশ্রুতির মাধ্যমে ভোটারদের আকৃষ্ট করার চেষ্টা করছেন প্রার্থীরা।৩০ জানুয়ারি সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট গ্রহন সম্পন্ন হবে।

মেয়র পদে নির্বাচন না হলে কাউন্সিলরদের নিয়ে উত্তেজনার কমতি নেই ভোটার ও প্রার্থীদের সমর্থকদের মধ্যে।বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) দুপুরে নির্বাচনে কেন্দ্র দখলের আশঙ্কায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন ৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন তালুকদার, নান্না শেখ এবং ১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী কাজী জাকির হোসেন বাচ্চু।সংবাদ সম্মেলনে তারা অভিযোগ করেন, মেয়র প্রার্থী না থাকায় প্র্রশাসনের নজর দারি কম।১ ও ৪ নং ওয়ার্ডে প্রভাবশালী প্র্রার্থী ও তার সমর্থকরা কেন্দ্র দখলের চেষ্টা করতে পারে।এছাড়াও কয়েকজন কাউন্সিলর প্রার্থী কেন্দ্র দখল হতে পারে এবং ভোটের সময় বিশৃঙ্খলা হতে পারে এমন আশঙ্কা করে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।এসব কারণে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসন সতর্ক অবস্থায় রয়েছেন।সুষ্ঠভাবে নির্বাচনের জন্য ৯টি কেন্দ্রে ৯জন নিম্যাজিষ্ট্রেট, প্রতি কেন্দ্রে ৫ জন পুলিশ, ৯ জন আনছার সদস্য, একজন ভোট গ্রহন কর্মকর্কতা নিয়োজিত থাকবেন। এছাড়াও দুই প্লাটুন বিজিবি, এক প্লাটুন কোস্টগার্ড, র‌্যাবের তিনটি টহল টিম, পুলিশের দুটি ভ্রাম্যমান টিম আইনশৃঙ্খলা সুষ্ঠ থাকতে নিয়োজিত থাকবে।

বাগেরহাট জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফরাজী বেনজীর আহমেদ বলেন, মোরেলগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের জন্য আমরা সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ করেছি। নির্ধারিত সময়ে সুষ্ঠভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের দিনে সহিংসতা ঘটতে পারে, এমন আশঙ্কা করে কয়েকজন প্রার্থী অভিযোগ দিয়েছেন। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। কোন কেন্দ্র যদি ঝুকিপূর্ণ মনে হয়, সেখানে সুষ্ঠ নির্বাচন সম্পূর্ণ করার জন্য আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করব। নির্বাচনে প্রত্যেক কেন্দ্রে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রয়োজনীয় সংখ্যক সদস্য দায়িত্বে থাকবেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।