শেখ তন্ময়ের উদ্যোগ ‘ফোন করলেই ডাক্তার যাবে রোগীর বাড়ি’ সেবার উদ্বোধন

তানজিম ও শহিদুল. “এই নাম্বারে ফোন করি, ডাক্তার যাবে রোগীর বাড়ি” এই প্রতিপাদ্য নিয়ে বাগেরহাটে স্বাস্থ্যসেবা সেবা চালু হয়েছে। বুধবার (১৪ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টায় বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়ের উদ্যোগে বাগেরহাট সদর হাসপাতাল চত্বরে এই ব্যতিক্রমি এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক আ.ন.ম ফয়জুল হক। এসময় পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হক, সিভিল সার্জন ডা. কেএম হুমায়ুন কবির, স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক দেব প্রসাদ পাল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক খোন্দকার রিজাউল করিম, বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মাদ মোছাব্বেরুল ইসলাম, বাগেরহাট সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রদীব বকসি, বাগেরহাট সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মোঃ মিরাজুল করিমসহ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আয়োজকরা জানান, করোনা সংক্রমন প্রতিরোধে ব্যতিক্রমী এই স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রমের অধীনে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মোঃ মিরাজুল করিম চারটি মেডিকেল টিম পরিচালনা করবেন।

কোন রোগী যদি হাসপাতালে আসতে ভয় পান তাহলে ০১৭৩০-৩২৪৭৯৩ এই নাম্বারে ফোন করলে চিকিৎসক টিম চলে যাবেন রোগীর বাড়িতে।রোগীকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পরামর্শ ও ঔষধ প্রদান করা করবেন চিকিৎসকরা।ব্যতিক্রমী এই চিকিৎসা সেবা চালু করায় সংসদ সদস্য ও স্বাস্থ্য বিভাগকে স্বাগত জানিয়েছেন স্থানীয় জনগন।

বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিন বলেন, বাগেরহাট-২ আসনের সংষদ সদস্য শেখ তন্ময়ের উদ্যোগে করোনা সংক্রমনের প্রথম ধাপে “ডাক্তারের কাছে রোগী নয়, রোগীর কাছে ডাক্তার” এই স্লোগান নিয়ে একটি ব্যতিক্রমী চিকিৎসা সেবা চালু করেছিলাম। করোনা সংক্রমনের এই দ্বিতীয় ঢেউয়েও মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত ও সংক্রমন প্রতিরোধে রোগীদের হাসপাতালে আগমন নিরুৎসাহিত করতে বাড়িতে গিয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।এই কার্যক্রমের আওতায় আপতত বাগেরহাট সদর ও কচুয়া উপজেলার মানুস বাড়িতে বসে স্বাস্থ্য সেবা গ্রহনের সুযোগ পাবেন। পর্যায়ক্রমে জেলার সকল উপজেলায় এই সেবা চালু করার আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কেএম হুমায়ুন কবির বলেন, সরকার ঘোষিত লকডাউনের ফলে যানচলাচল সীমিত করা হয়েছে। যার ফলে অনেক রোগী হাসপাতালে আসতে পারছেন না। এই পরিস্থিতিতে বাড়িতে বসে রোগীদের স্বাস্থ্য সেবা দেওয়ার উদ্যো্গ নেওয়া হয়েছে। এর ফলে ওই রোগী একদিকে বাড়িতে বসে চিকিৎসা পাবেন। তিনি যদি সংক্রমিত হয়েও থাকেন, তার মাধ্যমে আর কারও মাঝে রোগ ছড়ানোর সম্ভাবনা থাকবে না। এই উদ্যোগের ফলে করোনা পরিস্থিতিতে মানুষ সঠিক চিকিৎসা পাবেন এবং করোনা সংক্রমন রোধেও ভূমিকা রাখবে।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক আ.ন.ম ফয়জুল হক বলেন, এই নম্বরে ফোন করি, ডাক্তার যাবে রোগীর বাড়ি। এর মানে হচ্ছে ওই নাম্বারে ফোন করা হলে ডাক্তার রোগীর বাড়ি গিয়ে সেবা দিয়ে আসবেন। এটা বাগেরহাটবাসীর জন্য একটি বড় অর্জন।