মোড়েলগঞ্জে প্রতিবেশীকে শায়েস্তা করতে পোল ভেঙ্গে ফেলল প্রতিপক্ষরা

নিজস্ব প্রতিবেদক.
বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে প্রতিবেশীকে শায়েস্তা করতে বাড়িতে প্রবেশের কাঠের পোল ভেঙ্গে ফেলেছে প্রতিপক্ষরা। শুক্রবার (২০ আগস্ট) বিকেলে মোড়েলগঞ্জ উপজেলার ২ নং পঞ্চকরণ ইউনিয়নের উত্তরকুমারিয়া জোলা গ্রামের হাবিব কাজীর বাড়ির সামনের কাঠের পোলটি ভেঙ্গে ফেলে তার প্রতিপক্ষ মনোয়ার মুন্সি অরফে মনো ও তার লোকজনরা। যার ফলে হাবিব কাজীসহ আশপাশের দশটি পরিবারের স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এ বিষয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে জানিয়েছেন হাবিব কাজী।
তিনি বলেন, নিজের ও প্রতিবেশীদের চলাচলে সুবিধার জন্য প্রায় ২ বছর আগে নিজস্ব অর্থায়নে বাড়ির সামনে কাটাবুনিয়া খালের উপর কাঠের পোল নির্মান করেছিলাম। কিন্তু প্রতিবেশী মনোয়ার মুন্সি, রাজু মুন্সি, হবি মুন্সি আলো মুন্সি, আসলাম মুন্সি, রিয়াজুল মুন্সিসহ কয়েকজন লোক শুক্রবার বিকেলে প্রকাশ্য দিবালোকে আমার পোলটি ভেঙ্গে ফেলে। বাঁধা দিলে আমাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। এই পোল ভেঙ্গে ফেলায় শুধু আমার যাতায়েত ব্যবস্থা বিঘ্নিত হয়নি অন্তত ১০ থেকে ১২টি পরিবারের স্বাভাবিক চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এই পোল ভাঙ্গা সন্ত্রাসীদের বিচারের সাথে সাথে পোলটি মেরামতের জন্য উধ্র্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।
হবিব মুন্সি অভিযোগ করে বলেন, এই মনো মুন্সি চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে মামলাও আছে। মাদকসহ বেশ কয়েকবার গ্রেফতার হয়েছে। রাজু ও আসলাম এলাকার সন্ত্রাসী। এছাড়া গাজা, ইয়াবার ব্যবসা করেন।
একই এলাকার শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, হাবিব কাজী এই পোলটি নির্মান করলেও আমরা সবাই এই পোল ব্যবহার করতাম। কিন্তু শুক্রবার বিকেলে হঠাৎ করে মনোয়ার মুন্সি ও তার লোকজন দা কুড়াল ও লাঠিসোটা নিয়ে এসে এই পোলটি ভেঙ্গে ফেলে। যার ফলে আমরা মারাত্মক ভোগান্তিতে পড়েছি।
২ নং পঞ্চকরণ ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. কামরুল মুন্সি বলেন, শুক্রবার বিকেলে হাবিব কাজী ও আসলাম মুন্সিদের মাঝে বিরোধ মীমাংসার জন্য এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে শালীসে বসেছিলাম। এই সময় দুই পক্ষই উত্তিজিত হলে, গন্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে পরমার্শ করে আমরা শালীস বন্ধ করে দেই। পরবর্তীতে আসলাম মুন্সি ও তার লোকজন অন্যায় ভাবে হাবিব কাজীর বাড়িতে প্রবেশের পোলটি ভেঙ্গে ফেলেছে। আসলাম মুন্সি এলাকার একজন চিহ্নিত খারাপ লোক। মানুষের পাকা ধানে মহিষ চরানো তার কাজ। পোল ভাঙ্গার বিষয়ে হাবিব কাজী কোন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করলে আমরা তার পাশে থাকব।
পোল ভাঙ্গা ও মাদক ব্যবসায়ের বিষয়ে মনোয়ার মুন্সি বলেন, সবাই উত্তেজিত হলে শালীস বৈঠক বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে কিছু পোলাপান পোলটি ভেঙ্গে ফেলে। আমি এই পোল ভাঙ্গার সাথে জড়িত নই। মাদক ক্রয়-বিক্রয়ের সাথে আমার কোন সম্পর্ক নেই।
পাঁচগাঁও পুলিশ ক্যাম্পের এ এসআই এ এস এম মফিজুর রহমান বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করে আমরা পোল ভাঙ্গার সত্যতা পেয়েছি। লিখিত অভিযোগ পেলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করব।
মোড়েলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, কারও চলাচলের পোল ভেঙ্গে ফেলার বিষয়টি খুবই দুঃখ জনক। আমাদের কাছে অভিযোগ দিলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করব।